নতুনদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার সেরা দক্ষতা 2024

Md. Abdur Rahman
25 Min Read

আজ আমরা নতুনদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার 15টি জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং দক্ষতা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো। এছাড়াও জানতে পারবেন ফ্রিল্যান্সিং কোন কাজের চাহিদা বেশি 2023 । কারন দিন-দিন এ সেক্টরটি অনেক বেশি প্রসারিত হচ্ছে প্রসারিত হচ্ছে এখানে কাজ করা লোকের সংখ্যাও।

বিশ্বব্যাপি কোভিড-১৯ আসার পর থেকে মানুষ আরো বেশি অনলাইন কাজের উপর নির্ভর হয়ে পরেছে। যার ফলে এখন অনেকেই ঘরে বসে অনলাইন বিজনেস অথবা ফ্রিল্যান্সিং করে মাসে লাখ-লাখ টাকা ইনকাম করছে। আপনি চাইলে ব্লগিং করে মাসে ২৫-৩০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারেন।

করোনার মধ্যে সারাবিশ্ব যখন ধমকে গিয়েছিল তখন ফ্রিল্যান্সারেরা লাখ-লাখ ডলার ঘরে বসে ইনকাম করেছে। এটা কোন গল্প বা মনগড়া কথা নয়, এটা সত্য ঘটনা।

- Advertisement -

তথ্য প্রযুক্তি মানুষের উন্নয়নের জন্যই তৈরি হচ্ছে। এখন আর আগের মত কোন অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপ করতে কোন ডেভেলপার হায়ার করতে হয় না। এবং দরকার পরে না কোন অফিসও। এখন অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং সাইটের মাধ্যমে আপনি একজন দক্ষ ফ্রিল্যান্সার খুজে নিয়ে আপনার প্রজেক্টটি বুঝিয়ে দিলেই আপনার কাজ শেষ। সময়মত পেয়ে যাবেন আপনি আপনার অ্যাপ্লিকেশন।

তাইতো শিখুন! জানুন এবং ফ্রিল্যান্সিং দক্ষতা বাড়িয়ে তুলুন।

যাইহোক বন্ধুরা, আমরা তাহলে আমাদের আজকের মূল বিষয় নতুনদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার সেরা দক্ষতা সম্পর্কে আলোচনা শুরু করি। আমাদের সাথেই থাকো।

নতুনদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার সেরা দক্ষতা 2023

নতুনদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং দক্ষতা বা কাজের জন্য বিষয় নির্বাচন করা আসলেই কঠিন বিষয়। তাইতো আমরা বর্তমান প্রেক্ষাপট পর্যালোচনা করে কিছু জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং দক্ষতা নির্বাচন করেছি যা ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়্যার শুরু করার জন্য অনেক উপযোগী। তবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার পূর্বে অবশ্যই আপনাকে বুঝতে হবে যে আপনি কোন কাজের জন্য উপযোগী।

কারন দক্ষতা নির্বাচন করা নতুনদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং শুরু করে সেখান থেকে সফলতা অর্জন করতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নিচে আমরা প্রতিটা ফ্রিল্যান্সিং দক্ষতার উপর বিস্তারিত আলোচনা করছি-

- Advertisement -
  1. WordPress Development & Customization
  2. Graphics Design
  3. Web App Development
  4. SEO
  5. Digital Marketing
  6. Social Media Marketing
  7. Video Editing
  8. Mobile Development
  9. Virtual Assistant
  10. Content Writer
  11. Software Development
  12. Cloud Computing
  13. Data Science & Analysis
  14. Data Analytics
  15. Transcription

আরো পড়ুনঃ

1. WordPress Development & Customization (ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট)

ফ্রিল্যান্সিং দক্ষতার মধ্যে ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট সবচেয়ে জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং কাজ। একজন দক্ষ ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপার প্রতি ঘন্টায় চার্জ করে প্রায় $50-$80 এর মত যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৫-৭ হাজার টাকা আর মাসে এসে দারাবে প্রায় লাখ টাকার উপরে। তাহলে বুঝতেই পারছেন এটা ক্যারিয়ার হিসেবে কেমন হবে। ওয়ার্ডপ্রেস 2020 সালে Upwork-এ সর্বাধিক চাহিদার দক্ষতার 7 তম স্থানে স্থান পেয়েছে।

ওয়েব এর দুনিয়ায় ওয়ার্ডপ্রেস আসলেই অনেক পরিবর্তন এনে দিয়েছে। কারন ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে এখন একটা সাইট ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করা অনেক সহজ এবং খরচের দিক থেকেও অনেক বেশি সস্তা।

তাইতো ছোট ব্যবসার জন্য ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট একটা পছন্দের প্লাটফর্ম। সারাবিশ্বে প্রায় ৬০% ওয়েবসােইট এই ওয়ার্ডপ্রেস এ ডেভেলপ করা।

কেনইবা এর জনপ্রিয়তা বা চাহিদা বারবে না কারন আপনি বিনাখরচে একটা সাইট তৈরি করে নিতে পারছেন একটা ফ্রি থিম ব্যবহার করে। এছাড়াও বিভিন্ন প্লাগিন এর মাধ্যমে আপনার সাইটের সিকিউরিটি শক্ত করে নিতে পারেন যা আপনার লোকাল ডেভেলপমেন্ট করতে অনেক খরচ হত।

আপনি ছোট থেকে বড় যেকোন ওয়েবসাইট ওয়ার্ডপ্রেস এ তৈরি করতে পারবেন যেমন- ই-কমার্স, হসপিটাল ম্যানেজমেন্ট, অনলাইন স্টোর, স্কুল ম্যানেজমেন্ট, কোম্পানি ওয়েবসাইট, পোর্টফোলিও ইত্যাদি সবই করতে পারবেন।

- Advertisement -

এখন আপনি যদি চিন্তা করে থাকেন যে আপনি ফ্রিল্যান্সার হিসেবে ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্টে প্রবেশ করবেন। তাহলে আমি বলব আপনি একটা দারুন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কারন এর চাহিদা অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে অনেক বেশি। এবং ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট এর কাজের মূল্যও ভাল পাওয়া যায়। একবার ঘুরে আসতে পারেন আপওয়ার্ক টম ফ্রিল্যান্সারদের প্রফাইল

2. Graphics Design (গ্রাফিক্স ডিজাইন)

অনলাইন প্লাটফর্মে সবথেকে বেশি কাজের পোস্ট হওয়া বিষয়টার নাম গ্রাফিক্স ডিজাইন। এটাকে মার্কেটপ্লেসের সবথেকে জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং দক্ষতা বললেও ভুল হবে না।

আপনি যদি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ধরণের প্রকল্পে কাজ করার চিন্তা পোষন করেন তবে একজন ফ্রিল্যান্স গ্রাফিক ডিজাইনার হওয়ার কথা ভাবতে পারেন। কারন এই ফিল্ডে কাজের চাহিদাও অনেক বেশি থাকে সাথে আপনি বিভিন্ন বিষয়ের অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারবেন।

- Advertisement -

উদাহরণস্বরূপ, আপনি অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে বিভিন্ন ডিজাইনের কাজ করার সুযোগ পাবেন যেমন- বিভিন্ন কোম্পানির লোগো, ব্যানার, পোস্টার, ভিজিটিং কার্ড, বইয়ের কভার, মুভি পোস্টার ডিজাইন, ইমেল টেমপ্লেট, বিলবোর্ড, YouTube থাম্বনেল এবং আরও অনেক কিছু ডিজাইন করতে পারেন।

একজন দক্ষ ফ্রিল্যান্স গ্রাফিক্স ডিজাইনার প্রতি বছর ছয় অঙ্কের বেশি আয় করতে পারে। এজন্য আপনাকে হতে হবে একজন দক্ষ ডিজাইনার, এছাড়াও আপনি তৈরি করতে পারেন dribbble.com-এর মতো সাইটে আপনার একটি আকর্ষনীয় প্রোফাইল।

আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইনের উপর আপনার ফ্রিল্যান্স দক্ষতা বাড়াতে এবং আপনার ক্যারিয়ার শুরু করতে চান, তাহলে আমাদের সহজ কিছু টিপস আপনার জন্য-

  • বেশি বেশি টপ ডিজাইনারদের ভিডিও দেখুন
  • একটা ভাল ডিজাইনের সাথে একটা খারাপ ডিজাইনের ভিন্নতা খুজে বের করুন
  • ভাল ডিজাইনের উপর অনুশীলন করুন
  • প্রতিনিয়ত আপডেট ডিজাইন সফটওয়্যার ব্যবহার করুন
  • প্রতিটা ডিজাইন করার ক্ষেত্রে স্টান্ডার্ড পন্থা অবলম্বন করুন
  • নতুন নতুন বিষয় সম্পর্কে চিন্তা করুন
  • ডিজাইন করার পূর্বে পেপারে স্কেচ করে নিন ইত্যাদি

দ্রুত শিখতে প্রতিনিয়ত টপ ডিজাইনারদের ডিজাইন ভিডিও দেখুন। এছাড়াও আপনি আপনার দৈনন্দিন জীবনে যা দেখেন তা থেকে অনুপ্রেরণা সন্ধান করুন। ডিজাইনের চাহিদা কখনো কমবে না কারন এটা প্রতিটা সেক্টরের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত।

এছাড়াও আপনি WeWorkRemotely-এর মতো সাইটে ফ্রিল্যান্স গ্রাফিক ডিজাইনের চাকরিতে সক্রিয়ভাবে আবেদন করতে পারেন।

- Advertisement -

3. Web App Development (ওয়েব অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট)

অনলাইন মার্কেটপ্লেসের সর্বাধিক অর্থ প্রদানের দক্ষতা ও চাহিদার দিক থেকে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট অন্যতম। এর প্রধান কারণ হল প্রতিটা কোম্পানি তাদের ব্রান্ডিং করার জন্য প্রচুর অর্থ খরচ করে থাকে এজন্য তারা চায় তাদের কোম্পানির ওয়েবসাইটও তৈরি হবে সবার থেকে আলাদা ও আকর্ষণীয়।

এজন্য তারা অধিক নজর দেয় এই বিষয়টার উপরে। এবং দক্ষ ডেভেলপারদের মাধ্যমে তৈরি করে তাদের ব্রান্ডিং ওয়েবসাইট। ভাল একটা ওয়েবসাইট একটা কোম্পানির ব্যবসাকে প্রসারিত করে তাই ব্র্যান্ডগুলি সর্বদা সুন্দর এবং কার্যকরী ওয়েবসাইটগুলির জন্য সর্বোচ্চ ডলার মূল্য দিতে ইচ্ছুক।

প্রতিষ্ঠিত একজন ফ্রিল্যান্স ওয়েব ডিজাইনাররা সহজেই প্রতি বছর ৮-১০টির মত ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট করতে পারে। এবং তারা অযথা বেশি কাজ নেয়না কারন তারা চিন্তা করে যে বেশি কাজের থেকে কম কাজে বেশি পেমেন্ট নেওয়াটা অধিক লাভের। এছাড়াও প্রতিটা প্রজেক্টে অনেক সময় দেওয়া যায়। এজন্য তারা শুধুমাত্র উচ্চ মূল্যের ক্লায়েন্টদের কাছ থেকে প্রকল্প গ্রহণ করে এবং তারা যা চায় তা চার্জ করে।

আপনি যদি একজন ফ্রিল্যান্স ওয়েব ডেভেলপার হতে চান, শুরু করার পূর্বে আমাদের লিংকে ক্লিক করে কিছু টপ রেটেড ওয়েব প্রোগামার বা ডেভেলপারদের প্রফাইল চেক করে আসতে পারেন। এছাড়াও আপনারা যে বিষয়গুলোর উপর দক্ষতা অর্জন করতে পারেনঃ

  • CSS
  • HTML
  • PHP
  • mySQL
  • Python
  • SQL
  • ASP.NET
  • Bootstrap
  • JavaScript
  • Django
  • React

উপরের এই বিষয়গুলো থেকে আপনাকে সিলেক্ট করতে হবে যে আপনি কোন বিষয়ে আপনার দক্ষতা বাড়াতে চান। এসকল দক্ষতার উপার হাজারো ভিডিও আপনি ইউটিউবে পেয়ে যাবেন।

এর পরে, আপনি আপনার প্রথম ওয়েবসাইট তৈরি করে আপনার দক্ষতা উন্নত করতে পারেন, যেমন নিজের একটি ব্যক্তিগত পোর্টফোলিও যা আপনাকে ভবিষ্যতে ক্লায়েন্ট পেতে সহায়তা করবে।

- Advertisement -

4. SEO (এসইও)

এসইও (SEO) শব্দটার সাথে আমরা কম-বেশি প্রায় সকলেই পরিচিত। এসইও মানে সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশান। একটা সাইটকে গুগল এর সার্চে প্রথম পজিশন এ নিয়ে আসার কাজটা মূলত এই এসইও এর মাধ্যমে করা হয়।

বর্তমানে এই এসইও এর চাহিদা অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে অনেক বেশি। কারন প্রতিদিন অনলাইনে লাখ-লাখ নতুন ওয়েবসাইট রেজিস্ট্রেশন হচ্ছে। এই সকল সাইটগুলোকে এসইও করার জন্য ফ্রিল্যান্সিং এর চাহিদা বরাবরই অনলাইন মার্কেটপ্লেসে আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে।

তাইতো কেউ যদি চিন্তা করে যে এই এসইও এর উপরে ক্যারিয়ার গড়বে তাহলে খারাপ হয় না।

কারন বর্তমানে টেকনোলজির উপর মানুষ এত বেশি নির্ভর হয়ে পড়ছে যে ভবিষ্যতে এটা ছাড়া কোন বিকল্প নেই। এছাড়াও আপনার নিজেরও যদি একটা সাইট থেকে থাকে তাহলে সেই সাইটের এসইও আপনি নিজেই করতে পারবেন। কারন এসইও ছাড়া কোন ওয়েবসাইটের ট্রাফিক দ্রুত বৃদ্ধি করা যায় না।

এসইও সাধারনত দুই প্রকারঃ

১. অন পেজ এসইও

২. অফ পেজ এসইও

- Advertisement -

আপনি যদি এসইও এর উপর প্রশিক্ষন নিতে চান তাহলে ইউটিউবে প্রচুর কোর্স রয়েছে। তবে আমি যার ব্লগ থেকে মূলত এসইও সম্পর্কে যেনেছি সে হচ্ছে Neil Patel। আমি আপনাদের অনুরোধ করব যে একবার হলেও তার পোস্টগুলো পড়ে দেখুন আশা করি ভাল লাগবে।

অনেকে প্রশ্ন করে যে ইংরেজি ব্লগ ছাড়া বাংলা নেই? উত্তর হ্যা আছে, তবে আপডেট বা নতুন টেকনিক জানতে আপনাকে অবশ্যই ইংরেজি ব্লগ অনুসরন করতে হবে। কারন সমস্ত টেকনিক আগে ইংরেজিতে পাবিলিশ হয় তারপর আমরা যারা বাংলা ব্লগ লিখি তারা সেটা বাংলায় রুপান্তর করে প্রকাশ করি। তবে এ্যাডভেন্সড এসইও শিক্ষতে আপনার ইংরেজি ব্লগ অবশ্যই পরতেই হবে।

এখন ২০২২ কেন এত চিন্তা করছেন, গুগল মামা আছে তো যে কোন কিছু খুজতে হলে। গুগলে গিয়ে শুধুমাত্র লিখে সার্চ করেন যে আপনার কি প্রয়োজন; গুগল মামা আপনার সামনে সেটা হাজির করবে আপনি শুধু তার মধ্য থেকে বেছি নিবেন।

5. Digital Marketing (ডিজিটাল মার্কেটিং)

ডিজিটাল মার্কেটিং আরেকটি জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্স দক্ষতার নাম। এর চাহিদা সারা বিশ্বব্যাপি প্রসারিত। একজন ডিজিটাল মার্কেটিং ফ্রিল্যান্সার প্রতি মাসে ২-৩ হাজার ডলার এর বেশি আয় করতে পারে। এর জন্য জানতে হবে কিছু মার্কেটিং কৌশল।

সাধারনত বড় বড় কোম্পানি তাদের পন্য বা সার্ভিস সম্পর্কে সারা বিশ্বব্যাপি প্রচারনা চালানোর কাজ করে থাকে। এজন্য তারা কোন থার্ড পার্টি ব্যক্তি বা কোম্পানিকে নিয়োগ দেয় তাদের ডিজিটাল মার্কেটিং করার জন্য। কারন ডিজিটাল মার্কেটিং বর্তমানে সবথেকে সহজ ও দ্রুততম মাধ্যম যার মাধ্যমে আপনি কয়েক মিনিট বা কয়েক ঘন্টার মধ্যে আপনার পন্যের প্রচারনা সারা বিশ্বব্যাপি ছড়িয়ে দিতে পারবেন।

- Advertisement -

এজন্য আপনি যদি একজন ডিজিটাল মার্কেটার হতে চান তাহলে আপনাকে এখনই বেছে নিতে হবে যে আপনি কোন বিষয়ের উপর মূলত মার্কেটিং করবেন। কারন ডিজিটাল মার্কেটিং এর পরিধিটা অনেক বড় যেমন- ডিজিটাল বিজ্ঞাপন, সোশ্যাল মিডিয়া বিজ্ঞাপন, ব্লগ পোস্ট, ভিডিও বিজ্ঞাপন, ইমেল এবং এসএমএস প্রচারণা ইত্যাদি।

ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার জন্য আপনাকে একনাগারে প্রায় প্রথম ৬ মাস অক্লান্ত পরিশ্রম করতে হবে ট্রেনিং করার পাশাপাশি। এবং এই ৬ মাস যদি আপনি সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারেন আমি আশা করি আপনার আর পিছে ফিরে তাকানো লাগবে না। কারন এটা এমন একটা দক্ষতা যা লেগে থাকলে সফলতা একবার ধরা দিবেই।

এই মার্কেটিংটা আপনি আপনার নিজের সাইট কিংবা আপনার পরিচিত কোন কোম্পনির সাইট থেকেই শুরু করতে পারেন। তাহলে একদিকে যেমন আপনার মার্কেটিং এর প্রাকটিস হয়ে যাবে সাথে সাথে আপনার সাইটের ভিজিটর সংখ্যা ও বৃদ্ধি পাবে ডিজিটাল মার্কেটিং এর কারনে।

6. Social Media Marketing (সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং)

এখন আমরা যে পয়েন্ট নিয়ে আলোচনা করব সেটা হল সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং। এই বিষয়ে আমরা উপরে কিছুটা আলোচনা করে এসেছি। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং মূলত ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটা অংশ যেখানে বিজ্ঞাপন এর ক্ষেত্রে শুধুমাত্র সোশ্যাল মিডিয়াকে ফোকাস করা হয়েছে।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে অনেক ক্লায়েন্টদের প্রথম টার্গেট থাকে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কারন এখানে অনেক লোক তাদের বেশিরভাগ সময় ব্যয় করে। এজন্যই ডিজিটাল মার্কেটিং এর মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং জনপ্রিয় কারন এর মাধ্যমে ব্যবসায়িরা গ্রাহকদের দৃষ্ঠি আকর্ষন করতে পারে।

প্রতিটি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের অনন্য কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে যার জন্য বিভিন্ন বিপণন কৌশল এখানে প্রয়োগ করা প্রয়োজন। Facebook-এ আপনি Facebook বিজ্ঞাপনের জন্য অর্থ প্রদান করতে পারেন বা ফেসবুক গ্রুপ এবং গল্পগুলিতে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। ইনস্টাগ্রামে, আপনি ইনস্টাগ্রাম ক্যারোসেল, গল্প বা রিলে প্রভাবশালী অর্থপ্রদানকারী পোস্ট এবং আসল সামগ্রীর মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। এছাড়াও লিংকডইন এ আপনি এড দিতে পারেন কোন কোম্পানির প্রফাইল থেকে।

- Advertisement -

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বর্তমানে একটা মজার পেশা। কারন এখানে আপনি প্রতিনিয়ত নতুন নতুন কিছু শিখতে পারবেন। এজন্যই আর দেরি না করে আজই শুরু করুন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং। আপনারা চাইলে নিল প্যাটেল এর ”সোশ্যাল মিডিয়া হ্যাক” ‍আর্টিকেলটি পরে আসতে পারেন।

7. Video Editing (ভিডিও ইডিটিং)

ভিডিও এডিটিং ফ্রিল্যান্স দক্ষতার মধ্যে একটা ব্যয়বহুল পেশা বলা যায় তবে আয়ের দিক থেকে আকাশচুম্বি।

কারন আপনি যদি একজন ভাল মানের ভিডিও এডিটর হতে চান তাহলে আপনাকে মুভি এডিটিং, গ্রাফিক্স মোশন, থ্রিডি ইত্যাদি শিখতে হবে। এর জন্য আপনার প্রয়োজন একটা উচ্চ ক্ষমাতাসম্পন্ন কম্পিউটার ডিভাইস এবং ভিডিও এডিটিং এর উপর ভাল কিছু পেইড কোর্স যা আপনার দক্ষতাকে আরো বেশি বাড়িয়ে তুলবে।

কি হতাশ হয়ে গেলেন আমার কথা শুনে? যে আমারতো সামর্থ্য নেই তাহলে আমি কি ভিডিও এডিটিং করতে পারবো না?

আমার উত্তর হবে হ্যা অবশ্যই আপনি ভিডিও এডিটিং করতে পারবেন। কারন আমিও পেরেছি, আমার ইউটিউব চ্যানেল এর ভিডিও এবং ইন্ট্রো মোশন আমি নিজে তৈরি করি। আমি কোন প্রতিষ্ঠানিক কোর্স করি নাই ভিডিও এডিটিং এর উপর। আমি ইউটিউবে প্রচুর ভিডিও দেখতাম এডিটিং শেখার জন্য। অনেক ভিডিও এডিটিং সফ্টওয়্যার আছে যারা প্রচুর অনলাইন টিউটোরিয়াল দেয়, আর ইউটিউবতো আছেই সব বিনামূল্যে দেখতে পারবেন।

ভিডিও এডিটরদের এখন উচ্চ চাহিদা রয়েছে কারণ ইন্টারনেটে প্রতিদিন কয়েক মিলিয়ন ঘন্টা ভিডিও সামগ্রী আপলোড করা হয় বিভিন্ন প্রয়োজনে। যেমন- ইউটিউবে প্রতিসেকেন্ডে হাজার হাজার ভিডিও আপলোড হচ্ছে বিভিন্ন বিষয়ের উপর, কেউবা বিজ্ঞাপন এর জন্য ভিডিও এডিটিং করছে, ওয়েবসাইট এর জন্য, প্রেজেন্টেশনের জন্য, এছাড়াও মুভি ও মিডিয়া জগতের মত বড় বিষয় তো বাদই দিলাম এমন হাজারো এডিটিং এর কাজের চাহিদা বর্তমান অনলাইন বাজারে প্রয়োজন। তাইতো আপনিও অল্প প্রশিক্ষন নিয়ে শুরু করতে পারেন এই এডিটিং কাজ।

এখন আমরা আলোচনা করব এমন একটা বিষয় নিয়ে যেটা ছাড়া আপনি এডিটিং শুরু করতে পারবেন না। আর সেটা হল সফটওয়্যার। আপনি যদি ভিডিও এডিটিং হিসেবে কাজ শুরু করতে চান, তাহলে iMovie-এর মতো আপনার পছন্দের একটি ভিডিও এডিটিং সফ্টওয়্যার বাছতে হবে। তবে এই iMovie ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যারটি শুধুমাত্র আ্যাপল এর ডিভাইসগুলোর জন্য ব্যবহারযোগ্য।

আমি আপনাদের এখন দুটো ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার এর নাম বলছি যা বর্তমান সময়ে খুব জনপ্রিয়। এটা আপনারা উইন্ডোজ মেশিনে ইনস্টল করে ব্যবহার করতে পারবেন। একটি হল – Wondershare Filmor এবং অপরটির নাম – Camtasia। তবে দুটো সফটওয়্যারই প্রিমিয়াম প্যাকেজ ছাড়া ফ্রি ভার্শনে বেশি কাজ করতে পারবেন না। এই সকল সফটওয়্যার এর ক্রাক ভার্শন আপনারা টরেন্ট সাইট থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।

8. Mobile Development (মোবাইল ডেভেলপমেন্ট)

বর্তমানে মোবাইল এ্যাপ ডেভেলপমেন্ট একটা শকের ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে। তাইতো কারও একটা সাইট থাকলে সে চিন্তা করে একটা এ্যাপ ডেভেলপমেন্ট করতে।

- Advertisement -

ইন্টারনেট জনসংখ্যার 80% এবং তার বেশি মানুষ দৈনন্দিন কাজ সম্পাদন করতে স্মার্টফোন ব্যবহার করে। এই বিশাল ট্রাফিক সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপারদের চাহিদা বাড়িয়েছে। আইওএস এবং অ্যান্ড্রয়েডের জন্য নেটিভ অ্যাপ তৈরি করার পরিবর্তে, ক্লায়েন্টরা হাইব্রিড মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপারদের দাবি করে যারা iOS এবং অ্যান্ড্রয়েড উভয়ের জন্য অ্যাপ তৈরি করতে পারে।

বিশ্বব্যাপী ই-কমার্সের বৃদ্ধি প্রায় প্রতিটি ব্যবসার জন্য একটি অনলাইন উপস্থিতি চিহ্নিত করা অপরিহার্য করে তুলেছে। আরও, ইন্টারনেট ছোট এবং বড় ব্যবসার জন্য বিশ্বজুড়ে নতুন নতুন বাজারে বৃদ্ধি এবং বিকাশের জন্য বিশাল ভিস্তা খুলে দেয়।

ফলস্বরূপ, ওয়েব এবং মোবাইল ডেভেলপারদের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। ওয়েব এবং মোবাইল ডেভেলপমেন্ট ডিজিটাল এবং অনলাইন মার্কেটিং সম্প্রদায়ের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। ই-কমার্স বাড়ার সাথে সাথে ওয়েব এবং মোবাইল ডেভেলপাররা নিজেদেরকে ক্রমবর্ধমান চাহিদা খুঁজে পাবে। এটি ইন্টারনেট এবং বিভিন্ন পরিষেবা যেমন অনলাইন শপিং, মোবাইল ব্যাঙ্কিং এবং অন্যান্য অ্যাক্সেস করার জন্য স্মার্ট-ফোনের ব্যাপক ব্যবহারের কারণেও। তাই অ্যাপ ডেভেলপারদের চাহিদাও রয়েছে। স্মার্টফোনের মাধ্যমে প্রায় প্রতিটি অনলাইন ফাংশন অ্যাপের মাধ্যমে পরিচালিত হয়। এই ক্ষেত্রে যে কেউ এই মুহূর্তে তাদের ফ্রিল্যান্স দক্ষতার চাহিদা খুঁজে পাবে।

9. Virtual Assistant (ভার্চুয়াল অ্যাসিস্টেন্স)

ভার্চুয়াল সহকারীরা ব্যবসার জন্য বিভিন্ন ধরণের পরিষেবা দিতে পারে। তারা ব্যবসার মালিকদের ইমেলের উত্তর দিতে, মিটিং নির্ধারণ করতে, ফ্লাইট বুক করতে এবং আরও অনেক কিছু করতে সাহায্য করতে পারে। বিভিন্ন ব্যবসার মালিকরা কীভাবে কাজ করে তা শেখার এটি একটি দুর্দান্ত উপায়।

আপনি যদি একজন ভার্চুয়াল সহকারী হতে চান, আপনি হয় সমস্ত ট্রেডের জ্যাক হতে পারেন বা কয়েকটি নির্দিষ্ট কাজের জন্য নিখুঁত হতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, আপনি ডেটা এন্ট্রি এবং প্যাকেজে বিশেষজ্ঞ হতে পারেন যা একটি পরিষেবা হিসাবে যা আপনি একাধিক ব্যবসার কাছে একটি নির্দিষ্ট মূল্যে বিক্রি করেন। আপনার শক্তি এবং দুর্বলতা প্রতিফলিত করুন, এবং আপনি অফার করতে পারেন পরিষেবা প্যাকেজ তৈরি করা শুরু করুন. তারপরে, কোনো নো-কোড ওয়েবসাইট নির্মাতা ব্যবহার করে একটি সাধারণ ওয়েবসাইট তৈরি করুন যাতে আপনি আপনার পরিষেবাগুলিকে হাইলাইট করতে পারেন। এই ওয়েবসাইটটি আপনার ব্যক্তিগত ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠা করতে সাহায্য করে এবং ভবিষ্যতের ক্লায়েন্টদের সাথে আস্থা তৈরি করে।

- Advertisement -

আপনার প্রথম ক্লায়েন্টকে সুরক্ষিত করার অনেক উপায় আছে। আপনি আপনার ব্যক্তিগত নেটওয়ার্কের সাথে আপনার ওয়েবসাইট ভাগ করতে পারেন. আপনি প্রশংসিত যে ছোট ব্যবসার অভাব রয়েছে তা আপনি দেখতে পারেন এবং আপনার সহায়তায় সেই শূন্যতা পূরণ করার প্রস্তাব দিতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, ব্যবসায়িক ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিন এবং দেখুন ব্যবসার মালিকরা কী সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। সম্ভবত তারা গ্রাহকের অভিযোগের প্রতিক্রিয়া জানাতে লড়াই করছে। অথবা তারা অসংগঠিত এবং অভিভূত বোধ করছে। যদি আপনার পরিষেবাগুলির মধ্যে একটি ইমেল ইনবক্সগুলিকে পরিষ্কার এবং সংগঠিত রাখে, আপনি তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন এবং ইমেলের শীর্ষে থাকার জন্য সহায়ক টিপস দিতে পারেন৷ তারপর, যদি তারা আপনাকে নিয়োগের বিষয়ে আরও জানতে চায় তাহলে তাদের আপনার ওয়েবসাইটে একটি লিঙ্ক পাঠান। এটি ভালভাবে কাজ করে কারণ লোকেরা তাদের নিয়োগ করতে পছন্দ করে যারা তাদের সাহায্য করেছে এবং তাদের মূল্য প্রদর্শন করেছে।

10. Content Writer (কন্টেন্ট রাইটার)

মানসম্পন্ন ফ্রিল্যান্স বিষয়বস্তু লেখকদের চাহিদা ইদানীং আকাশচুম্বী হয়েছে। বেশিরভাগ ব্যবসাই বোঝে যে Google-এ উচ্চ র‌্যাঙ্ক করার জন্য তাদের সামঞ্জস্যপূর্ণ, ভাল-গবেষণা করা এবং আসল সামগ্রী প্রয়োজন। ফলস্বরূপ, তারা ফ্রিল্যান্সারদের নিয়োগ করবে যারা দীর্ঘ-ফর্ম, আকর্ষক সামগ্রী তৈরি করতে পারে।

ফ্রিল্যান্স লেখকরা সাধারণত তাদের লেখা প্রতিটি শব্দ, নিবন্ধ বা প্রকল্পের জন্য অর্থ উপার্জন করে। ফ্রিল্যান্স লেখকরা ছয়টি পরিসংখ্যানের বেশি উপার্জন করতে পারেন, বিশেষ করে যদি তারা উচ্চ পরিমাণে সামগ্রী তৈরি করে। উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি প্রতি নিবন্ধে $140 উপার্জন করেন এবং প্রতি মাসে 60টি নিবন্ধ লিখতেন, আপনি প্রতি বছর $100,800 উপার্জন করবেন। প্রতি মাসে 60টি নিবন্ধ অনেকের মতো শোনালেও, এটি প্রতিদিন মাত্র 2টি নিবন্ধ। অনুশীলনের সাথে, আপনি একটি প্রক্রিয়া বিকাশ করবেন যা আপনাকে দ্রুত লিখতে সহায়তা করবে। কিছু লেখক এমনকি দ্রুত টাইপ করতে স্পিচ-টু-টেক্সট টুল ব্যবহার করেন। আপনি আরও বেশি অর্থ প্রদান করে এমন বড় প্রকল্পগুলি নিতেও বেছে নিতে পারেন।

কারণ আপনার সমস্ত সামগ্রী লিখতে হবে একটি ফোন বা ল্যাপটপ, প্রতিযোগিতা বেশি। স্ট্যান্ড আউট, একটি ব্যক্তিগত ব্লগ ওয়েবসাইটে আপনার ব্যক্তিগত আগ্রহ সম্পর্কে লিখতে শুরু করুন. আপনার লেখকের কণ্ঠস্বর সবচেয়ে বেশি উজ্জ্বল হয় যখন আপনি যে বিষয়গুলি সম্পর্কে উত্সাহী হন সেগুলি সম্পর্কে লিখছেন৷

আপনার লেখার উন্নতি করার জন্য একটি টিপ হল সহজ বাক্য ব্যবহার করা। আমেরিকানরা সাধারণত 7ম থেকে 8ম গ্রেড লেভেলে পড়ে। এর মানে আপনার অত্যধিক জটিল শব্দ বা বাক্য গঠন ব্যবহার এড়ানো উচিত। আপনি আপনার লেখাকে আরও পঠনযোগ্য করতে hemmingwayapp.com এর মত বিনামূল্যের টুল ব্যবহার করতে পারেন।

একবার আপনি আপনার ওয়েবসাইটে কিছু পোস্ট প্রকাশ করলে, আপওয়ার্কের মতো সাইটগুলিতে ফ্রিল্যান্স লেখার চাকরির জন্য আবেদন করা শুরু করুন। আমি যখন ফ্রিল্যান্স কন্টেন্ট লেখক হিসাবে প্রথম শুরু করি তখন আমি এটিই করেছি। আমি Upwork-এ আমার প্রথম ফ্রিল্যান্স বিষয়বস্তু লেখকের চাকরি পেয়েছি, যেখানে আমি প্রতি 150-300 শব্দ নিবন্ধে $12-$24 উপার্জন করেছি।

11. Software Development (সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট)

আমি বুঝতে ব্যর্থ হই কেন সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট ফ্রিল্যান্সারদের জন্য একটি শীর্ষ দক্ষতা হিসাবে মিস করে?

যখন আমি আপওয়ার্ক এবং গুরুতে পোস্ট করা প্রকল্পগুলি দেখি, তখন আমি ডেস্কটপ সফ্টওয়্যার বিকাশকারীদের জন্য ভাল চাহিদা দেখতে পাই। ক্লায়েন্টরা এখনও তাদের ডেস্কটপ এবং ক্লাউড-ভিত্তিক সফ্টওয়্যার/অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করার জন্য মানসম্পন্ন সফ্টওয়্যার বিকাশকারীদের সন্ধান করছে।

12. Cloud Computing (ক্লাউড কম্পিউটিং)

Inde.com ক্লাউড কম্পিউটিংকে এই বছর শেখার জন্য সবচেয়ে বেশি চাহিদার দক্ষতা হিসেবে সুপারিশ করে। যখন ক্লাউড কম্পিউটিং আসে, তখন আপনি অন্বেষণ করতে পারেন এমন অনেকগুলি ভিন্ন কুলুঙ্গি রয়েছে।

প্রধানত আপনার ক্লাউড কম্পিউটিং, অ্যামাজন ওয়েব সার্ভিসেস (AWS), Azure সম্পর্কে বোঝার উপর মনোযোগ দেওয়া এবং একজন ক্লাউড কম্পিউটিং ইঞ্জিনিয়ার বা এমনকি একজন প্রোগ্রামার হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা শেখার উপর মনোযোগ দেওয়া উচিত।

তারপরে আপনি SaaS (একটি পরিষেবা হিসাবে সফ্টওয়্যার) ব্যবসায় এবং স্টার্টআপগুলিতে তাদের প্রকল্পগুলি বিকাশে সহায়তা করতে যোগদান করতে পারেন। এঞ্জেললিস্টে এই জাতীয় পেশাদারদের জন্য প্রচুর সুযোগ রয়েছে।

13. Data Science & Analysis (ডাটা সাইন্স এবং এ্যানালাইসিস)

ডেটা সায়েন্স জটিল শোনাতে পারে কিন্তু এটি শেখার একটি মোটামুটি সহজ দক্ষতা।

ব্যবসায়, এটি প্রধানত কোম্পানিগুলিকে তাদের বিক্রয় এবং গ্রাহক ডেটা বিশ্লেষণ করতে সাহায্য করার বিষয়ে একটি ব্যবসাকে আরও উন্নত করতে।

ডেটা বিশ্লেষকরা উচ্চ বেতনের বেতন পান এবং এটি একটি লাভজনক দক্ষতা যা আপনি আয়ত্ত করতে পারেন। কিন্তু, ডেটা বিশ্লেষণে দক্ষ হওয়ার জন্য ডেটা, স্পট প্যাটার্ন এবং আরও অনেক কিছু ব্যাখ্যা করার জন্য আপনার অতিরিক্ত দক্ষতা থাকতে হবে।

14. Data Analytics (ডেটা অ্যানালিটিক্স)

দিন-দিন অনলাইনে ডাটার পরিমান অনেকগুনে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এজন্যই বাজার গবেষকরা বলছেন, ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে ডেটা সাইন্স ও ডেটা অ্যানালিটিক্সের চাহিদা বাড়তে থাকবে প্রতিনিয়ত। ২০২৪ সাল নাগাদ ডেটা অ্যানালিটিক্স মার্কেট বেড়ে দাঁড়াবে ২৭৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে (আনুমানিক)।

গত বছরের তুলনায় আপওয়ার্কে ডেটা অ্যানালিটক্সে চাহিদাসম্পন্ন কর্মীর চাহিদা ৩৫% শতাংশ বেড়েছে। বর্তমান সময়ে ব্যবসার ট্রেন্ড (Trend) বুঝতে এবং সে অনুযায়ী পরিকল্পনা সাজাতে দক্ষ কর্মীদের জন্য নানা প্রকল্প নিচ্ছে নিয়োগদাতারা। তাই যাঁরা ফ্রিল্যান্সিংয়ে এই ধরনের ডেটা সম্পর্কিত কাজ করতে আগ্রহী তাঁদের জন্য এ দক্ষতা বাড়তি একটি আয়ের পথ খুলে দেবে।

15. Transcription (ট্রান্সক্রিপশন)

যারা এক ভাষা থেকে অন্য ভাষায় ডাটা ট্রান্সক্রিপশন কাজে পারদর্শী তাঁদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং কাজে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। বর্তমানে দিন-দিন ট্রান্সক্রিপশনে দক্ষ কর্মীর চাহিদা বাড়ছে। গত বছরে আপওয়ার্ক ডটকমে ৫২ দশমিক ২ শতাংশ চাহিদা বেড়েছে ট্রান্সক্রিপশন কাজে দক্ষ কর্মীদের।

যারা নতুন করে ফ্রিল্যান্সিং করতে আগ্রহী, তাঁরা ভাষান্তর কাজে দক্ষতা অর্জন করতে পারেন। ইংরেজি, হিন্দি, আরবি, রুশ, মান্দারিন, ফ্রেঞ্চসহ যত বেশি ভাষা জানবেন, তত বেশি আয় করতে পারবেন।

পরিশেষে, বলতে গেলে আপনি যদি উপরের যেকোন একটা বিষয়ে সঠিকভাবে দক্ষতা অর্জন করতে পারেন। তাহলে, আশা করি আপনার কাজের কোন অভাব হবে না। বর্তমানে দক্ষ ফ্রিল্যান্সারদের চাহিদা সারা বিশ্বব্যাপি প্রচুর পরিমানে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

Share This Article
Md. Abdur Rahman
By Md. Abdur Rahman Founder & Editor
Follow:
আমি একজন প্রযুক্তি প্রেমী। সবসময় নতুন নতুন প্রযুক্তি সম্পর্কে জানতে ও শিখতে আগ্রহী। এই সেক্টরে আমার অভিজ্ঞতা প্রায় ১০+ বছর। টেকপথ আমার একটি স্বপ্ন যাত্রার নাম। প্লাটফর্মটি প্রতিষ্ঠার মূল উদ্দ্যেশ্য সহজ ভাষায় প্রযুক্তি সকলের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া। এজন্য সকলের শুভকামনা আশা করি। ধন্যবাদ! নিজে পড়ুুন ও অন্যকে শেয়ার করে পড়ার সুযোগ করে দিন।
4 Comments

Leave a Reply